শিক্ষা ও প্রযুক্তি

দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত রাজপথে থাকার ঘোষণা একপক্ষের

  এক্সক্লুসিভ নিউজ, ২১ মার্চ, ২০১৯


প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠকে শিক্ষার্থী প্রতিনিধি দল এক সপ্তাহের জন্য নিরাপদ সড়কের আন্দোলন স্থগিতে সম্মত হয়ে এলেও আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের একাংশ তা মানতে নারাজ। দাবি বাস্তবায়নে গৃহীত পদক্ষেপ দৃশ্যমান না হওয়া পর্যন্ত তারা রাজপথেই থাকতে অনড় অবস্থানের কথা জানিয়েছেন। তবে আজ বুধবারের (২০ মার্চ) মতো সড়ক অবরোধ তুলে নিয়েছেন তারা। আন্দোলনে অনড় পক্ষরা বলছেন, বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) সকাল ১০টায় ফের তারা সড়ক অবরোধ করবেন।
বুধবার বসুন্ধরা গেট এলাকায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থীদের মধ্যে এমন বিপরীতমুখী অবস্থান দেখা যায়। গতকাল মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) সকাল থেকে তারা বাসের ধাক্কায় সহপাঠী আবরার আহমেদ চৌধুরীর মৃত্যুর ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এর বিচার ও পরবর্তী সময়ে নিরাপদ সড়কের আন্দোলন শুরু করেছিলেন।
এর আগে, বুধবার দুপুর ২টা থেকে বিকেল প্রায় ৫টা পর্যন্ত ঢাকা উত্তর সিটির নগর ভবনে বিইউপি উপাচার্যের উপস্থিতিতে উত্তর সিটির মেয়র আতিকুল ইসলাম, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়াসহ পুলিশ ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন ১৫ বিইউপি শিক্ষার্থীর একটি প্রতিনিধি দল। বৈঠকে শিক্ষার্থীদের দাবি-দাওয়া মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেন মেয়র এবং এক সপ্তাহের মধ্যে এগুলো বাস্তবায়নের ঘোষণা দেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষার্থী প্রতিনিধি দল আন্দোলন এক সপ্তাহের মধ্যে স্থগিতের ঘোষণা দেন।
বৈঠক শেষে মেয়র আতিকুল ইসলাম ও প্রতিনিধি দলের সদস্য শিক্ষার্থী ফয়সাল এনায়েত জানান, এক সপ্তাহের মধ্যে এসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন না হলে শিক্ষার্থীরা ফের আন্দোলনে নামবেন। ২৮ মার্চ সকালে এসব পদক্ষেপের অগ্রগতি নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেই বৈঠকের আলোচনায় অগ্রগতি সন্তোষজনক না হলে নতুন করে রাজপথে নামবেন তারা।
বৈঠক শেষে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার পর বৈঠকে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থী প্রতিনিধি দল বসুন্ধরা গেট এলাকায় এসে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেয়। কিন্তু অন্যপক্ষ সেটি শুনে প্রত্যাখান করে এবং আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়। ফলে নগরভবনে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হওয়া অবরোধ স্থগিত হলেও অবরোধকারী শিক্ষার্থীরা সড়ক থেকে তাৎক্ষণিকবাবে অবরোধ তুলে নিতে অস্বীকৃতি জানায়। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধী সৃষ্টি হয়।
জানা গেছে, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ ও ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা মূলত আন্দোলন চালিয়ে নিতে ইচ্ছুক। তারা বলছেন, দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত প্রশাসনের আশ্বাসে তারা আস্থা রাখতে পারছে না। সে কারণে তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।
তবে বুধবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে তারা আজকের মতো সড়ক অবরোধ তুলে নেওয়ার ঘোষণা দেন। বৃহস্পতিবার সকালে ফের তারা অবরোধে বসবেন বলে জানান। এসময় শিক্ষার্থীদের সবাইকেই বসুন্ধরা গেট ছাড়তে দেখা গেছে।

শিক্ষা ও প্রযুক্তি ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ